দেশে দেশে হিন্দুধর্ম

ইসরায়েলে হিন্দু ধর্ম

রাশিয়া থেকে আগত জগদীশ ও তার স্ত্রী যুগল-প্রীতির মাধ্যমে ইসরায়েলে ইসকনের কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বিস্তৃত হয়েছে।

পৃথিবীর একমাত্র ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েল। এটি পশ্চিম এশিয়া তথা মধ্যপ্রাচ্যের একটি রাষ্ট্র। দেশটি ভূমধ্যসাগরের দক্ষিণ-পূর্ব তীরে ও লোহিত সাগরের উত্তর তীরে অবস্থিত। দেশটির উত্তর স্থলসীমান্তে লেবানন, উত্তর-পূর্বে সিরিয়া, পূর্বে জর্দান ও ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত ভূখণ্ড পশ্চিম তীর, পশ্চিমে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড গাজা উপত্যকা এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে মিশর অবস্থিত।

অর্থনৈতিকভাবে ইসরায়েল একটি অত্যন্ত উন্নত শিল্পপ্রধান রাষ্ট্র। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের মতে এটি বিশ্বের ৩৯টি অগ্রসর অর্থনীতিসমৃদ্ধ দেশগুলির একটি।

ইসরায়েল মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। দেশটির জনসংখ্যা প্রায় ৯৩ লক্ষ। এদের মধ্যে ৬৭ লক্ষ ইহুদী জাতি ও ধর্মাবলম্বী এবং ১৯ লক্ষ আরব জাতিভুক্ত, যাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান। এটিই বিশ্বের একমাত্র রাষ্ট্র যেখানে ইহুদীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ সম্প্রদায়। ইসরায়েলের জনগণ অত্যন্ত উচ্চশিক্ষিত; এখানকার প্রায় অর্ধেক জনগণের বিশ্ববিদ্যালয় বা তার সমপর্যায়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা আছে, যা বিশ্বের ৩য় সর্বোচ্চ। দেশটির জীবনযাত্রার মান সমগ্র মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ, এশিয়াতে ৫ম এবং বিশ্বে ১৯তম।

আরো দেখুনঃ আরব দেশ কাতারে হিন্দু ধর্ম 

ইসরায়েলে খুব সামান্য সংখ্যক হিন্দু ধর্মানুসারী বসবাস করে। স্বাভাবিকভাবেই হিন্দু জনসংখ্যার বেশীরভাগই ভারতীয় বংশোদ্ভূত। হিন্দুদের বেশীরভাগই ইসরায়েলে ব্যবসায়িক কর্মকান্ডে যুক্ত। ইসরায়েলে ইসকনের কার্যক্রম রয়েছে। বেশীরভাগ ইসকন ভক্ত কাতজির-হারিশ নামক স্থানে বসবাস করেন। এছাড়া এরিয়েল নামক স্থানেও কিছু ইসকন বৈষ্ণব বাস করেন। রাশিয়া থেকে আগত জগদীশ ও তার স্ত্রী যুগল-প্রীতির মাধ্যমে ইসরায়েলে ইসকনের কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বিস্তৃত হয়েছে। যুগল-প্রীতি ১৯৯৬ সালে তেল আবিবের ইসকন সেন্টারে যুক্ত হন।

হিন্দুরা কোন প্রকার বাধা ছাড়াই ইসরায়েলে ধর্ম চর্চা করতে পারেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে ইসরায়েলে বেশ বড় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানে শ্রীকৃষ্ণের লীলা নাটক মঞ্চস্থ হয়। এছাড়া ধর্মীয় গান ও নৃত্যেরও আয়োজন হয়। একই সাথে ১০৮ প্রকার খাবার দিয়ে শ্রীকৃষ্ণকে ভোগ প্রদান করা হয়। ইসরায়েলের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের হিন্দুরা এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

স্বামী বিষ্ণুদেবানন্দ ১৯৭১ সালে ইসরায়েলে ‘শিবানন্দ যোগ বেদান্ত সেন্টার’ নামে একটি যোগ সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে এটি ইসরায়েলের সবচেয়ে বড় যোগ প্রতিষ্ঠান।

আরো দেখুনঃ ওমানে হিন্দু ধর্ম

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
error: Content is protected !!